Monthly Archives: October 2018

যুগলবন্দি

ছবি — অমল সান্যাল

সুয্যি সেদিন যাচ্ছে ডুবে,          চাঁদটি উঁকি মারছে পুবে,
ফুটছে তারা ... এমনি সময়,      আসল কানে, বুজরুকি নয়,
             টিকটিকি আর আরশোলাতে বাক্যালাপ।
মুণ্ডু মাথা নেই কোনও তার,     বাজছে কানে তবুও বেকার,
সুর ভরা সেই অচিন বেসুর,      সকাল বিকেল রাত্রি দুপুর,
             পণ্ড করে আর যত মোর কাজকলাপ।

***

    টিকটিকি কয়, "আরশোলা রে, কোথায় আছিস ভাই?
    চল দুটিতে মাতিয়ে সভা গিটকিরি গান গাই।
    বাসায় আমার আজ ডেকেছি আত্মীয়দের ভোজ
    থাকলে গানা, জমবে খানা, হয় কি এমন রোজ?"

হুড়মুড়িয়ে গর্তে ঢুকে,              আরশোলাতে শুকনো মুখে
           বলল, "দাদা, লজ্জা দিলে বড়!
গাই কেমনে প্রাণটি খুলে,         বিস্তর কাজ রয়েছে ঝুলে,
             এমন দিনে অন্য কারেও ধর।"

    "ধরব কারে? গঙ্গাফড়িঙ্‌, উচ্চিংড়ের ছা-ও
    গাইবে বলে ভাঁওতা দিয়ে ভোর থেকে উধাও।
    তুই বাছা মোর শেষ ভরসা, দে বাড়িয়ে হাত,
    নইলে ফিরি কোন মুখে বল? থাকবে না কো জাত।"

"হায় রে দাদা, সবাই ফাঁকি         দিচ্ছে বসে, কেবল বাকি
            আমিই - তোমায় তরিয়ে দিতে ভবে?
থাক তবে কাজ রাখব আগে,       সুনাম তোমার রাগ বেরাগে,
            গর্ত থেকেই গান শুনিয়ে সবে।"

    লেজখানিতে ঢেউ তুলিয়ে, টিকটিকি সে কয়,
    "মঞ্চে বসেই গা' না কেন? কিসের এত ভয়?
    ঘুটঘুটে ঐ গর্ত ছেড়ে এক্ষুণি তুই চল,
    রোশনি ভরা ভোজবাড়িতে জমছে দলে দল।"

"সাধ করে কি গর্তে ভায়া?          আকাশ ঘিরে বাদল ছায়া,
              ভিজলে ডানা ধরবে নিউমোনিয়া -
প্রপঞ্চময় মর্ত্যপুরে,"                   আরশোলা কয় হতাস সুরে,
            “দেখবেটা কে? ভাবলে কাঁপে হিয়া!"

    "বাদল ছায়া কোথায় পেলি? নীল গগনে চাঁদ
    জোছ্‌না মেখে, রয়েছে পেতে ঘুম-তাড়ানি ফাঁদ।
    অন্ধ? না তোর পড়ল ছানি? ঠিক কী আছে তার?
    চেন্নাই চল, দেখিয়ে আনি মাদ্রাজি ডাক্তার।"

" 'চেন্নাই সে কোন চুলো গো?'       সহস্র মোর বউ, মেয়ে, পো,
          উলটে শুয়ে চিল্লাবে সব 'হায় রে হায়!'
সামাল দেবে তাদের ক্যাটা?          আরশোলাদের হরেক ল্যাঠা
          চিৎ হলে ফের উপুর করা বেজায় দায়।"

    "হেই বাবা রে! সত্যি? নাকি দিস মোরে ভড়কি?
    হাজারটা তোর লড়কা, বিবি? সুন্দরী লড়কি?
    না, না, রে ভাই, এদের ছেড়ে যাস নে কভু আর,
    আমিও নিলাম তোর গুষ্টির চৌকিদারির ভার!"

"রাম, রাম, রাম, ছি, ছি আরে!          টিকটিকিতে আরশোলারে
              পাহারা দিলে হাসবে দেশের লোক!
হাসবে মাছি, পিঁপড়ে, পোকা,           বলবে ‘দেখ দিচ্ছে ধোঁকা!
              ভূতের ব্যাটাও আওড়াতে চায় শ্লোক!' "

    "কী বললি তুই? ভূতের ব্যাটা? করছি আমি ছল?
    ধৈর্যের বাঁধ ভাঙলি এবার, চড়ল কোলেস্ট্রল।
    হৃদের রুগী, কতই ভুগি – সয় না এত আর,
    সব কটাকে আস্ত গিলে করব প্রতিকার!"

***

তারপরে ছাই কী যে হল,               থাকল কে যে, কে যে মোল?
ধাঁই-ধপাধপ্‌, ধড়মড়মড়,              শব্দ শুনে বুক ধড়ফড়,
                আসল পুলিশ ঘুরিয়ে হাতের ডাণ্ডা,
বাজল বাঁশি, ফাটল বোমা,              লড়ল উকিল মকদ্দমা,
জমল কে সব, তুলল কী রব,          তারই মাঝে আমার আজব
                 গপ্পোখানা জুড়িয়ে কখন ঠাণ্ডা!

***

প্রথম রচনা ২০০১।
শেষ পরিমার্জনা ২০১১।
কলকাতা।

_________

_________

Advertisements

ত্যাগ।

reduced_times_sq

গাও বাছা প্রাণ ভরে গাও তুমি গান
হবে গো তোমার সুর
সুধাময় সুমধুর
আরও যদি ত্যাগ কর তব পরিধান।
***

***

তিনতাল।

jhinjhak

ধিন্‌তাক্‌, তাক্‌ধিন্‌
তাক্‌ধিন্, ধিন্‌তাক্‌
দিনরাত, রাতদিন
ঝিংঝকে ঝিংচাক্‌।

***

***

দুরূহ।

কচ্ছপ দম্পতি!
অষ্টেপৃষ্ঠে আঁটিয়া সুদৃঢ় বর্ম–
ভাবে দুজনেই বোঝা কি দুরূহ কর্ম–
জায়া আমি, নাকি পতি?
______
Inspired by The Turtle — Ogden Nash

The turtle lives ‘twixt plated decks
Which practically conceal its sex.
I think it clever of the turtle
In such a fix to be so fertile.

***

***

স্যঁও পাও-লো

How to pronounce Sao Paulo

-কোথা যাস লো?
– স্যঁও পাও-লো
-সেটা বাবা কোথা?
-হবে হেথা হোথা
-কেমনেতে যাবি?
-খেতে খেতে খাবি
-সেথা থাকে কারা
-এরা ওরা তারা
-যাস নে সেখানে
-তুই যে এখানে ! 

***

***

 

সে।

বোলোনা

বোলো না গো, বোলো না
কাউকে সে ক’ল না
কাজে কেন ইস্তফা
দিয়ে, দফা করে রফা
পালাল সে বোলোনা!

***

***

ম্যাডাগ্যাস্‌ কার?

ম্যাডাগ্যাস্ কার ?

কী জানি ভাই রে

শুধু এটা জানি

নয় সে তোমার

নয় সে আমার

নয় সে ভবেশ কাকার —

ম্যাডাগ্যাস্’কার

হলেও হবে বা

শুধু ম্যাডাগ্যাস্’কা-র !

***

***

তর্ক

এক ছিল পাগলা, ছিল তার পাগলি

পাগলি, পাগলা কয়, তুই বাপু আগলি—

রোষেতে পাগলি বলে, শোন বেটা পাগলা

আগলির চেয়ে তুই ঢের, ঢের আগলা!
____________
Style inspired by Ogden Nash.

***

***

ভুল

ভর্তি সবই ভুলে
গোবর এবং গুলে
বল গুরু তুই কাটলি কোথা
চড়িয়ে আমায় শূলে?
বুঝিয়ে দে রে গুরু
কোনখান শেষ শুরু
ঠিক বেঠিকের
গোলকধাঁধা
কাঁপায় দুরুদুরু।
***
***

সর্বহারা

মন ওরম
আহা, মন ওরম
কোরো না থাকিয়া
হারাইবে সবই
যাহা কিছু তব
মনোরম।
***
***