Tag Archives: dipankar dasgupta

গগনবেড় — Pelican

A limerick that cannot but remind you of Ogden Nash, was apparently not written by him. It seems to have been penned by yet another American, Dixon Lanier Merritt, in 1910. There are two versions of the poem.

Version 1.
A wonderful bird is the pelican.
His bill can hold more than his belican.
He can hold in his beak
Enough food for a week,
But I’m damned if I see how the helican.

Version 2.
A funny old bird is a pelican.
His beak can hold more than his belican.
Food for a week
He can hold in his beak,
But I don’t know how the helican.

Incidentally, I searched for other poems by Merritt, but could not locate a single one other than this one.

Produced below are two of my own Bengali adaptations of the limerick.

Version 1.

পেলিক্যান
***
আজব পক্ষী বাবা পেলিক্যান
উদর চাইতে তর ঠোঁইট ক্যান
ধরে বেশি খাইদ্য?
শিবেরও অসাইধ্য
দেওন এ রহইস্যের ব্যাইখ্‌ক্যান।

Version 2.

গগনবেড় (পেলিক্যান)
***
গগনোবেড়, সে জাতে ক্রৌঞ্চ
উদর ছাপায়ে যার চৌঞ্চ
ধরে বেশি খাদ্য
বোঝে কার সাধ্য —
সে কি শুধু অলীকো প্রপৌঞ্চ ?

মেঘলা

ভাসতে ভাসতে মেঘটা হঠাৎ থমকে
দারুণ ডেকে আমায় দিল চমকে
তারপরেতে জানলা দিয়ে খানিক হাপুস চোখে
দেখল আমায় — মিছেই মনে পড়িয়ে দিল ওকে
আসল ফিরে গানগুলো তার বৃষ্টি ভেজা সুরে
মেঘের কোলে এলিয়ে যে গান হারিয়ে গেছে দূরে
মেঘটা কেবল থমকে
মিথ্যে আমায় চমকে
এমনি করে পালায় কেন অনন্তকাল দূরে?
যেখান থেকে দেখবে না কেউ একটি বারও ঘুরে?

Harakiri – Haiku

sharp blade of lightning–
sky used to carve itself up —
harakiri time …

The Covid Paradox — Keynes turned around

Economic and Political Weekly, 30 May, 2020.

The Paradox of a Supply Constrained Keynesian Equilibrium_The Covid 19 Case

Coroneeya

Folks, I’m told there’s nothin’ to feeya

For coroneeya’s simply melareeya

So it seems assures Trumpia the grouchia

Leaving no escape for Anthonia Faucia.

_________
Ogden Nash inspired.

গান

(রাগ বেহাগ, জলদ একতাল। চলন – রজনীকান্ত সেনের “কেউ নয়ন মুদে দেখে আলো/ কেউ দেখে আঁধার”)

কেউ বলে ক-রোনা চিনা

কেউ বলে কপাল

(আবার) কেউ বলে সে পাকিস্তানের

সব্বোনাশা চাল।

(কেউ বলে কপাল …)

কেউ বা বলে ছুঁসনে আমায়
কেউ বা বসে মুখোশ বানায়
কেউ চিল্লায় আন ক্লোরোকুইন
ছিঁড়ব নচেৎ ছাল।

(কেউ বলে কপাল …)

কেউ বলে সে হাঁচলে আসে
কেউ বা পালায় কাশলে পাশে
কেউ বলে তার জম্মো দিল
প্যাঙ্গোলিনের পাল।

(কেউ বলে কপাল …)

কেউ বা বলে ছাপ রে টাকা
কেউ বলে ভাই বিড়িই পাকা
কেউ জ্বলছে ক্ষিদের জ্বালায়
দিচ্ছে গালাগাল।

(কেউ বলে কপাল …)

একলা আমি ঘরের কোনে
সাবান দিয়ে আপন মনে
চলব বোধহয় হাতই ধুয়ে
হায় অনন্ত কাল।

(কেউ বলে কপাল …)

দুষ্টু বুড়ি

জানিস না কি, দুষ্টু বুড়ি

বয়েসটা তোর একশ কুড়ি?

তাই বলে কি মধ্য রাতে

স্বপ্ন আমার করবি চুরি?

দুষ্টু, দুষ্টু, দুষ্টু বুড়ি

যখন তখন স্বপ্ন চুরি

করলে আমি কেমন করে

মেঘ মুলুকে বেড়াই উড়ি?

দুষ্টু বুড়ি, দুষ্টু বুড়ি

বয়েসটা তোর একশ কুড়ি

তাই বলে কি যা খুশি তোর

ইচ্ছে হলেই করবি চুরি?

নিরো

ভাসতে ভাসতে মেঘটা হঠাৎ থমকে

আমায় দিল চমকে —

বলল সে তুই করবি কী আর বল?

আমার সাথে তার চে’ বরং নীল আকাশেই চল ।

পুড়িয়েছে তোর কপালখানা সে,

আঠারশ ঊনত্রিশে,

বাজিয়ে দোতারা পুড়িয়েছিল

যেমন নিরো রোমকে।

তাই তো বলি মেঘ হয়ে তুই

নীল আকাশেই চল —

সেখান থেকে বৃষ্টি সেজে

ফেলিস চোখের জল।

ওরা

ওরে ব্রহ্মাণ্ড

এ কী তোর কাণ্ড

জানালা একটা নেই

খাড়া তোর দেয়ালে!

ওপারেতে আছে যারা

হাসে না কী কাঁদে তারা

কিছুই দেখালি না রে

খ্যাপা তোর খেয়ালে।

মিনতি


করোনা গো করোনা!
এক কাজ কর না!
আমাদের ছেড়ে নিজে
মর না গো মর না!